Bangladesh Corona Virus Update News

Uncategorized

Bangladesh Corona Virus Update News, Bangladeshi Corona Virus affected members number and update all news you can easily get here. Corona is one of the most dangerous problems for Bangladesh at this moment so every visitor can read it for their great help with this problem.

Corona Virus problem is one of the most affected problems for Bangladesh. China already news that they help Bangladeshi people to cure it so just BD people need to obey all of the rules and prayer to Allah that protect us and save our children for future Bangladesh.

Bangladesh Corona Virus Update News

Table of Contents

PSC, JSC, SSC, HSC, National University and all job exam results we publish on our website resultpediabd.com. All Job circular and exam result every visitor can get here easily and faster than any other site. Our result pedia bd team always gives here a great service for you so don’t miss our service. 

Bangladeshi every job applicant cannot find out their job exam information so we give them an extra possibility for it. Warmly wishing welcome every visitor on our site resultpediabd.com and try to solve every problem of Bangladeshi regular job applicants. 

We always try to give here a clear image so it gives you a great reading quality. Result pedia bd in one of the most popular sites of Bangladesh for job circular and exam results.

we always post here a clear image and the applicant can save it easily by our site. Stay with us and visit regularly for the news update. the applicant needs a great preparation for this job, the job exam will be held a few months later.

Bangladesh Corona Virus Update News

মারা গেলেন আরো ৪২ জন, শনাক্ত ২,৭৪৪

২২ জুলাই, ২০২০

মারা গেলেন আরো ৪২ জন, শনাক্ত ২,৭৪৪

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণে আরো ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন শনাক্ত হয়েছেন দুই হাজার ৭৪৪ জন। এ নিয়ে দেশে করোনায় এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে দুই হাজার ৭৫১ জনের। আর সব মিলিয়ে শনাক্ত হয়েছেন দুই লাখ ১৩ হাজার ২৫৪ জন।

আজ বুধবার (২২ জুলাই) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে সরকারি বুলেটিনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। বুলেটিন প্রকাশে অংশ নেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

ডা. নাসিমা বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমণে দেশে আরো ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এঁরা ৩০ জন পুরুষ এবং ১২ জন নারী। বয়স বিবেচনায়  ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে একজন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে একজন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে তিনজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে তিনজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১১ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ১৪ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে আটজন এবং ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে একজন। এ নিয়ে দেশে করোনায় এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে দুই হাজার ৭৫১ জনের।

এ পর্যন্ত যাঁরা মৃত্যুবরণ করেছেন তাঁদের মধ্যে পুরুষ দুই হাজার ১৬৮ জন এবং নারী ৫৮৩ জন। আর বয়স বিবেচনায় এ পর্যন্ত যাঁরা মৃত্যুবরণ করেছেন তাঁরা এঁদের বয়স ০ (শূন্য) থেকে ১০ বছরের মধ্যে ১৮ জন, ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে ৩০ জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ৮২ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ১৮৭ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৩৯০ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৮১০ জন এবং ষাটোর্ধ এক হাজার ২৩৪ জন।

জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় যে ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে তাঁরা ঢাকা বিভাগের ২১ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের আটজন, রাজশাহী বিভাগের তিনজন, খুলনা বিভাগের তিনজন এবং সিলেট বিভাগের তিনজন, রংপুর বিভাগের দুইজন এবং বরিশাল বিভাগের দুইজন। হাসপাতালে মারা গেছেন ৩৭ জন এবং বাসায় পাঁচজন।

বিভাগ অনুযায়ী এ পর্যন্ত যাঁরা মৃত্যুবরণ করেছেন তাঁরা ঢাকা বিভাগের এক হাজার ৩৪১ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ৬৯৬ জন, রাজশাহী বিভাগের ১৫২ জন, খুলনা বিভাগের ১৮১ জন, বরিশাল বিভাগের ১০২ জন, সিলেট বিভাগের ১২৮ জন, রংপুর বিভাগের ৯৩ জন এবং ময়মনসিংহ বিভাগের ৫৮ জন।

এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৮০৫ জন। এ নিয়ে দেশের করোনা সংক্রমণ থেকে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ১৭ হাজার ২০২ জন।

ডা. নাসিমা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ১১ হাজার ৯৭৬টি। একই সময় পূর্বের নমুনাসহ পরীক্ষা হয়েছে ১২ হাজার ৫০টি। এর মধ্যে করোনা রোগী হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে দুই হাজার ৭৪৪ জনকে। এ নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন দুই লাখ ১৩ হাজার ২৫৪ জন।

আইসোলেশন প্রসঙ্গে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আইসোলেশনে নেওয়া হয়েছে আরো ৮২৪ জনকে। একইসময় আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ৬৯৯ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে গেছেন ৪৪ হাজার ৫০৪ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ২৫ হাজার ৭৭৮ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ১৮ হাজার ৭৯৬ জন।

কোয়ারেন্টিন প্রসঙ্গেও তথ্য দেওয়া হয় বুলেটিনে। বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টিনে গেছেন দুই হাজার ৪২৯ জন। এ পর্যন্ত কোয়ারেন্টিনে গেছেন মোট চার লাখ ১৬ হাজার ৯৩২ জন। ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড় পেয়েছেন দুই হাজার ৪৫২ জন। এ পর্যন্ত কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড় পেয়েছেন তিন লাখ ৫৭ হাজার ৮৭৬ জন। ছাড়ের পর বর্তমানে হোম এবং প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে আছেন ৫৯ হাজার ৫৬ জন।

সারা দেশের জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের জন্য প্রস্তুত ৬২৯টি প্রতিষ্ঠান। এর মাধ্যমে তাৎক্ষণিকভাবে ৩১ হাজার ৯৯১ জনকে সেবা প্রদান যায় বলে জানানো হয় বুলেটিনে।

বুলেটিনে আরো জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের স্বাস্থ্য বাতায়ন এবং আইইডিসিআর’র হটলাইনে কল এসেছে ৯৭ হাজার ৫১৩টি। এ নিয়ে এ পর্যন্ত ফোনকল গ্রহণ করা হয়েছে এক কোটি ৭২ লাখ ২২ হাজার ৩৮৩টি। এসব কলে সবাইকে স্বাস্থ্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

টেলিমেডিসিন সেবায় প্রতিদিন ৩৫ জন চিকিৎসক এবং ১০ জন স্বাস্থ্য কর্মকর্তা দুই শিফটে মোট ৯০ জন টেলিমেডিসিনে করোনা সংক্রান্ত স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে যাচ্ছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় তাঁদের স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণ করেছেন চার হাজার ৬৩৬ জন। এ পর্যন্ত এক লাখ ১১ হাজার ৫৩৪ জন এই সেবা গ্রহণ করেছেন বলে জানানো হয় বুলেটিনে।

সুস্থ ১৭৯৬, মৃত্যু ৩৩

১৫ জুলাই, ২০২০

 

সুস্থ ১৭৯৬, মৃত্যু ৩৩

বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১,৭৯৬ জন। গতকাল সুস্থ হয়েছিলেন ৪,৯১০ জন। এনিয়ে মোট সুস্থ হয়েছেন ১,০৫,০২৩ জন। এছাড়া একই সময়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৩৩ জন। গতকাল মারা গেছেন ৩৩ জন। এ নিয়ে দেশে মোট মারা গেছেন ২,৪৫৭ জন।

আজ বুধবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়। অনলাইনে বুলেটিন উপস্থাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

অনলাইন বুলেটিনে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪,০০২  জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এরমধ্যে আরও ৩,৫৩৩ জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১,৯৩,৫৯০ জন।

আপনার সুরক্ষা আপনার হাতে উল্লেখ করে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সকলকে স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মেনে চলতে সকলের প্রতি আহবান জানানো হয়।

দেশে নভেল করোনাভাইরাসে (কভিড-১৯) সংক্রমিত প্রথম রোগী শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। আর ১৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

 

বাংলা মজার মজার জোকস দেখতেঃ Click here

 

পরীক্ষা ছাড়াই একাদশের শিক্ষার্থীরা দ্বাদশে

ভর্তি ফি দিতে নির্দেশনা, শুরু অনলাইন ক্লাস

০৪ জুলাই ২০২০

করোনাভাইরাসের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বন্ধ আছে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এ সময়ে অনুষ্ঠিত হয়নি অভ্যন্তরীণ কোনো পরীক্ষা।

এদিকে সেশনের সময় চলে যাওয়ায় একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের নিয়ে সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছে কলেজগুলো। আগামী বছর এপ্রিলে তাদের এইচএসসি পরীক্ষা নির্ধারিত আছে।

তাই লেখাপড়ার গতি অব্যাহত রাখতে বিভিন্ন কলেজ শিক্ষার্থীদের দ্বাদশ শ্রেণিতে ‘অটোপাস’ দিচ্ছে। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা জানা গেছে।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক যুগান্তরকে বলেন, করোনার এই সময়ে সব প্রতিষ্ঠানেই শ্রেণিকাজ বন্ধ আছে।

বন্ধ আছে পরীক্ষা। তবে শিক্ষার্থীদের একাডেমিক রেকর্ড কলেজে আছে। সেটার ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠান শিক্ষার্থীদের পরের ক্লাসে উত্তীর্ণ দেখাতে পারে। এতে বোর্ডের আপত্তি থাকবে না।

সূত্র জানায়, করোনা পরিস্থিতির কারণে নটর ডেম কলেজের একাদশ শ্রেণি থেকে সবাইকে পরীক্ষা ছাড়া দ্বাদশ শ্রেণিতে উত্তীর্ণ করা হয়েছে।

উত্তীর্ণ সব শিক্ষার্থীকে চলতি জুলাই মাসের ২৬ তারিখের মধ্যে দ্বাদশ শ্রেণিতে ভর্তি ফি’র ৯ হাজার ৪০০ টাকাসহ চলতি জুলাই মাস ও আগামী আগস্ট এবং সেপ্টেম্বর মাসের ৭ হাজার ৮০০ টাকা পরিশোধের জন্য বৃহস্পতিবার নোটিশ দিয়েছে কলেজ কর্তৃপক্ষ।

তবে অভিভাবকদের দাবি, শিক্ষা মন্ত্রণালয় যেখানে করোনাকালে টিউশন ফি আদায়ে শিক্ষার্থীদের চাপ দিতে নিষেধ করেছে; সেখানে এভাবে নোটিশ দিয়ে ফি পরিশোধ করতে বলার কোনো মানেই হয় না।

আশা করছি কলেজ কর্তৃপক্ষ বিষয়টি বিবেচনা করবে। এ বিষয়ে জানতে নটর ডেম কলেজের অধ্যক্ষ হেমন্ত পিয়াস রোজারিও সিএসসিকে কল দিলে তার নাম্বার বন্ধ পাওয়া যায়।

দেশসেরা আরেক প্রতিষ্ঠান রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষার ভিত্তিতে পদোন্নতি দিয়েছ শিক্ষার্থীদের।

কলেজের সিনিয়র প্রধান প্রশাসনিক কর্মকর্তা আজহারুল আলম জানান, মার্চের শেষে একাদশ শ্রেণির পরীক্ষা নেয়ার কথা ছিল। সেটা সম্ভব না হওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ফওজিয়া জানান, প্রথম ও দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষার ফলের ভিত্তিতে একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পরের স্তরে উত্তীর্ণ করার চিন্তা চলছে। ঢাকা শিক্ষা বোর্ড ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে আলাপ করে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা হবে।

রাজধানীর শেখ বোরহানউদ্দিন পোস্ট গ্রাজুয়েট কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আবদুর রহমান বলেন, দ্বাদশ শ্রেণিতে শিক্ষার্থীদের উত্তীর্ণ করা হলে অনলাইন ক্লাস শুরু করা সম্ভব।

না হলে তারা লেখাপড়ার বাইরে থাকবে। তাই উত্তীর্ণ দেখানো উচিত। আমরা উত্তীর্ণ দেখিয়েই অনলাইন ক্লাস শুরু করেছি।

জানা যায়, রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে কোথাও দ্বাদশ শ্রেণিতে শিক্ষার্থীদের উত্তীর্ণ করা হয়েছে, আবার কোথাও উত্তীর্ণের প্রক্রিয়া চলছে।

 

 

 

পলিটেকনিকে ভর্তিতে বয়সের বাধা উঠছে, শিথিল হচ্ছে যোগ্যতা

০১ জুলাই ২০২০

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, কারিগরি শিক্ষায় ভর্তির হার বৃদ্ধি ও বিদেশফেরত দক্ষ কর্মীদের প্রাতিষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তির ক্ষেত্রে কোনো রকমের বয়সের সীমাবদ্ধতা রাখা হবে না। অনেক ব্যক্তির হয়তো প্রয়োজনীয় কারিগরি দক্ষতা আছে কিন্তু তাঁর প্রাতিষ্ঠানিক কোনো সনদ নেই এবং তা না থাকার কারণে ভালো চাকরি পাচ্ছেন না বা পেলেও ভালো বেতন পাচ্ছে না। সেক্ষেত্রে ওই ব্যক্তি যদি চান এবং যদি তাঁর প্রয়োজনীয় শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকে তাহলে তিনি ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তি হতে পারবেন।

সভায় ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তির ক্ষেত্রে ছেলেদের ক্ষেত্রে ন্যূনতম যোগ্যতা জিপিএ ৩ দশমিক ৫ থেকে কমিয়ে ২ দশমিক ৫ এবং মেয়েদের জিপিএ ৩ থেকে কমিয়ে ২ দশমিক ২৫ করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। পাশাপাশি ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তি ফি এক হাজার ৮২৫ টাকা থেকে কমিয়ে এক হাজার ৯০ টাকা করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

সভায় শিক্ষামন্ত্রী চলতি মাসের মধ্যে কারিগরি মাদ্রাসা বিভাগের শিক্ষকদের এমপিও এর অর্থ ছাড় করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন। এ ছাড়া সভায় পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপনের নীতিমালা, মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর আইন-২০২০ এবং নিয়োগবিধি প্রণয়নসহ কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।

কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মুনশী শাহাবুদ্দীনের সভাপতিত্বে সভায় আরও যুক্ত ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরি, মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সফিউদ্দিন আহমেদ, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. সানোয়ার হোসেন , মাদ্রাসা বোর্ডের চেয়ারম্যান কায়সার আহমেদ,কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. মুরাদ হোসেন মোল্লা প্রমুখ

 

 

দেশে করোনা কেড়ে নিল আরো ৩৮ প্রাণ, নতুন শনাক্ত ৪০১৯ জন

২ জুলাই, ২০২০

দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল মারা যান ৪১ জন। করোনায় এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ১৯২৬ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত হয়েছেন ৪০১৯ জন। গতকাল শনাক্ত হয়েছিলেন ৩৭৭৫ জন।

আজ বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে সরকারি বুলেটিনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। বুলেটিন প্রকাশে অংশ নেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

ডা. নাসিমা সুলতানা বরাবরের মতো করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষিত থাকতে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান বুলেটিনে।

গোটা বিশ্ব এখন করোনাভাইরাসের ছোবলে বিপর্যস্ত। গত ডিসেম্বরে চীনের উহান শহর থেকে ছড়ানোর পর এ ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা এক কোটির ছাড়িয়েছে। মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৫ লাখ। তবে সাড়ে ৫৪ লাখ ৪৭ হাজারের বেশি রোগী ইতোমধ্যে সুস্থ হয়েছেন।

গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম শনাক্ত হয় করোনাভাইরাস।

দেশে করোনায় নতুন ৪০১৯ জন শনাক্ত

২ জুলাই, ২০২০

বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৪,০১৯ জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়েছে। গতকাল শনাক্ত হয়েছিলেন ৩,৭৭৫ জন। এনিয়ে দেশে মোট শনাক্তের সংখা দাঁড়াল ১,৫৩,২৭৭ জন।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়। অনলাইনে বুলেটিন উপস্থাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

অনলাইন বুলেটিনে বলা হয়, ৭০টি পরীক্ষাগারে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৮,৩৬২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ পর্যন্ত মোট ৮,০২,৬৯৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

আপনার সুস্থতা আপনার হাতে উল্লেখ করে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সকলকে স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মেনে চলতে সকলের প্রতি আহবান জানানো হয়।

দেশে নভেল করোনাভাইরাসে (কভিড-১৯) সংক্রমিত প্রথম রোগী শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। আর ১৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

 

 

করোনাভাইরাসের কারণে স্থগিত থাকা সব সরকারি চাকরির পরীক্ষা নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে

 

করোনাভাইরাসের কারণে স্থগিত থাকা সব সরকারি চাকরির পরীক্ষা নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে।

করোনার কারণে থমকে আছে সরকারি চাকরির সকল নিয়োগ পরীক্ষা। বিশেষ করে ৩৮, ৪০ ও ৪১তম বিসিএসসহ পিএসসির অধীনে ১৩টি পরীক্ষা স্থগিত আছে। অন্যদিকে অর্নাস ও মাস্টার্স শেষ করেও নতুন বিজ্ঞপ্তি না থাকায় আবেদন করতে পারছেন না চাকরি প্রত্যাশীরা।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন ডিবিসি নিউজকে জানিয়েছেন, স্থগিত থাকা সব সরকারি চাকরির পরীক্ষা নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনার্স-মাস্টার্স শেষ করে সরকারি চাকরির নিয়োগ পরীক্ষার অপেক্ষায় আলামিন রাজু। আর করোনাকালে ঢাকায় থেকে প্রস্তুতি নেয়া কঠিন হয়ে যাচ্ছে, বলছেন ইডেন থেকে অনার্স পাস করা আরেক শিক্ষার্থী।

করোনার প্রকোপে কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের বড় একটি অংশ গ্রামে অবস্থান করছেন। সেখানে ইন্টারনেট সুবিধাসহ অনেক সীমাবদ্ধতার কথা জানান শিক্ষার্থীরা। নির্ধারিত সময়ে পরীক্ষা না হওয়া ও নতুন করে বিজ্ঞপ্তি না থাকায় বয়সের দিকটি নিয়েও শঙ্কার মধ্যে রয়েছেন চাকরি প্রত্যাশীরা।

করোনাভাইরাসের প্রকোপের কারণে আটকে গেছে তিনটি বিসিএস ও নন ক্যাডার চাকরির পরীক্ষাসহ পাবলিক সার্ভিস কমিশন-পিএসসির ১৩টি পরীক্ষা। পিছিয়ে গেছে খাদ্য অধিদপ্তরের নিয়োগ পরীক্ষা, ব্যান্সডকের লিখিত পরীক্ষা। তুলা উন্নয়ন বোর্ডের পরীক্ষা। সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, জনতা ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষাসহ অনেকগুলো সরকারি চাকরি পরীক্ষা প্রক্রিয়া আপাতত থেমে আছে।

পাবলিক সার্ভিস কমিশন-পিএসসি’র চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদিক জানিয়েছেন, ৩৮তম বিসিএস এর চূড়ান্ত ফলাফল দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রকাশ করা হবে। তবে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চালু না হলে কোনো নিয়োগ পরীক্ষা নেয়া যাবে না।

নভেম্বরে সরকারি চাকরি পরীক্ষা শেষ করার কথা জানান, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। বয়সের বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সাথে পরামর্শ করার কথাও জানান প্রতিমন্ত্রী।

করোনার প্রকোপে মার্চ, এপ্রিল, মে ও জুন এই চার মাসে সরকারি চাকরির কোনো নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি।

 

যেসব পণ্যের দাম বাড়বে এবং কমবে

১১ জুন, ২০২০

 

যেসব পণ্যের দাম বাড়বে এবং কমবে

২০২০-২১ অর্থবছরের ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেট পেশ করছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। আজ বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টায় সংসদের বিশেষ বাজেট অধিবেশনে ‘অর্থনৈতিক উত্তরণ ও ভতিষ্যৎ পথ পরিক্রমা’ শীর্ষক স্লোগান সম্বলিত ১১০ পৃষ্ঠার বাজেট বক্তৃতা শুরু করেন তিনি। এবার দেখে নেওয়া যাক, প্রস্তাবিত বাজেটে কোন পণ্যগুলোর দাম বাড়ছে এবং কোন পণ্যগুলোর দাম কমার সুখবর থাকছে।

দাম কমতে পারে যেসব পণ্যের : প্রস্তাবিত বাজেটে দেশীয় সর্ষের তেলে মূল্য সংযোজন কর (মূসক) অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। এছাড়া স্বর্ণ আমদানি, অটোমোবাইল ফ্রিজ এসির ওপর মুসক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। ডিটারজেন্টের কাঁচামালের ওপর শুল্ক কমানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। স্যানিটারি ন্যাপকিন ও ডায়াপারের কাঁচামাল আমদানিতে রেয়াতি সুবিধা বাড়ানো হবে। ইস্পাত শিল্পের রিফ্রাক্টরি সিমেন্টের ওপর শুল্ক কমানো হবে। এলপিজি সিলিন্ডারের দাম কমতে পারে। রেফ্রিজারেটর ও এসির কাঁচামাল আমদানিতে  রেয়াতি সুবিধা বাড়ছে।

দাম বাড়তে পারে যেসব পণ্যের :  শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত লঞ্চের টিকিট দাম বাড়বে। আগে ৫ শতাংশ মূল্য সংযোজন কর ছিল, নতুন অর্থবছরে তা বাড়িয়ে ১০ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। চার্টার্ড বিমান ও হেলিকপ্টার ভাড়ার ওপর সম্পূরক শুল্ক ২৫ শতাংশ থেকে ৩০ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রসাধনসামগ্রীর ওপর সম্পূরক শুল্ক ৫ থেকে ১০ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

পেঁয়াজ আমদানিতে কিছুটা শুল্ক আরোপ হবে। আসবাব কেনায় মূসক বেড়েছে। ৫ থেকে সাড়ে ৭ শতাংশ করা হয়েছে। মোবাইল ফোনে কথা বলার ওপর কর বাড়ছে। কার ও জিপ রেজিস্ট্রেশনসহ বিআরটিএ প্রদত্ত অন্যান্য সার্ভিস ফির ওপর সম্পূরক শুল্ক ১০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। সিরামিকের সিঙ্ক বেসিনের ওপর ১০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা হয়েছে। মধুর বাল্ক আমদানি শুল্ক বাড়ছে। বিদেশি মধুর দাম বাড়বে।

রঙ, অনলাইন খাবার, অনলাইন কেনাকাটা, বিদেশি টিভি, সিগারেট, সোডিয়াম সালফেট, আয়রন, স্টিল, স্ক্রু, আলোকসজ্জা সামগ্রী, কম্প্রেসার শিল্পে ব্যবহৃত উপকরণ, বার্নিশ বাইসাইকেল, আমদানি করা অ্যালকোহল, গাড়ি রেজিস্ট্রেশন খরচ, গাড়ি, শ্যাম্পু, জুস, ইন্টারনেট খরচ, আমদানি করা দুধ ও দুগ্ধজাত পণ্য, মোবাইল খরচ, চকলেট, বিদেশি মোটরসাইকেল, বডি স্প্রে।

বর্তমান পরিস্থিতিতে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব না : শিক্ষামন্ত্রী

 কালের কণ্ঠ

৩১ মে, ২০২০

 

বর্তমান পরিস্থিতিতে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব না : শিক্ষামন্ত্রী
শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব না। কারণ এখানে ব্যাপক সংখ্যক শিক্ষার্থী, পুরোপুরি গণপরিবহন চালু হতে হবে। দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব না। সেজন্য পরীক্ষাকেন্দ্র বহুগুণ বৃদ্ধি করতে হবে, তারপরও ঝুঁকি থেকে যাবে। সেটি কোনোভাবে নেওয়া সম্ভব নয় বলে আমরা মনে করি।

আজ রবিবার (৩১ মে) সচিবালয়ে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা এইচএসসি পরীক্ষার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করে রেখেছিলাম। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। সে কারণে পরিস্থিতি অনুকূল না হওয়া পর্যন্ত আমরা এইচএসসি পরীক্ষা নিতে পারছি না। যখনই মনে করব পরীক্ষা নেওয়ার পরিস্থিতির উদ্ভব হয়েছে তখনই আশা করি দু’সপ্তাহের সময় দিয়ে পরীক্ষার জন্য ব্যবস্থা করবো।

তিনি বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ আছে এবং যদি আরো দীর্ঘদিন বন্ধ থাকে তার ফলে শিক্ষার্থীরা অনেক বেশি পিছিয়ে না পড়ে তাদের শিক্ষা জীবন যাতে ব্যাপকভাবে ব্যাহত না হয় সেজন্য আমরা বহু পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। যখন খুলে দেওয়া হবে তার জন্য চেষ্টা থাকবে কীভাবে ক্ষতি পুষিয়ে দিতে পারি, তার জন্য আমাদের সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালাবো।

এর আগে রবিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মাধ্যমিকের ফল আনষ্ঠুানিকভাবে প্রকাশ করেন।

চলতি বছর সকল সাধারণ শিক্ষা বোর্ড এবং মাদরাসা ও কারিগরী শিক্ষা বোর্ড মিলিয়ে গড় পাশের হার ৮২.৮৭ ভাগ। গত বছর গড় পাসের হার ছিল ৮২ দশমিক ২০ শতাংশ। আর এবার সারাদেশে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ৩৫ হাজার ৮৯৮ জন। ২০১৯ সালে জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১ লাখ ৫ হাজার ৫৯৪ জন।

গত ৩ থেকে ২৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত অনুষ্ঠিত এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ২০ লাখ ৪০ হাজার ২৮ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে ১৬ লাখ ৯০ হাজার ৫২৩ জন বা ৮২.৮৭ ভাগ শিক্ষার্থী পাস করেছে।

 

ক্লাস–পরীক্ষার আরও অপেক্ষা, সংক্রমণ থামলেই শুরু

৩০ মে ২০২০

 

সরকারি-বেসরকারি অফিসগুলো সীমিত আকারে কাল রোববার খুললেও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত দেশের স্কুল-কলেজ খুলবে না। আপাতত জুনে স্কুল-কলেজ খোলার সম্ভাবনা নেই। এ কারণে আগামী মাসে স্কুলের অর্ধবার্ষিকী পরীক্ষাও হচ্ছে না। স্থগিত হয়ে থাকা উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষাও পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত শুরু হবে না।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর এবং ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেও অফিসের কাজকর্ম সীমিত আকারে শুরু হতে চললেও ক্লাস-পরীক্ষা আপাতত বন্ধই থাকবে।

দেশের সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গত ১৭ মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে। ফলে প্রায় চার কোটি শিক্ষার্থী পড়াশোনা নিয়ে বেকায়দায় পড়েছে। এর মধ্যে সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকারি-বেসরকারি অফিসগুলো কাল রোববার থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত সীমিত আকারে খুলে দেওয়া হবে। তবে এই সময় পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। এমন অবস্থায় শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের প্রশ্ন, তাহলে কি ১৫ জুনের পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও খুলে দেওয়া হবে। এর উত্তর খুঁজতে গিয়ে জানা গেল জুনেও স্কুল-কলেজ খোলার সম্ভাবনা নেই।

বর্তমানে দেশে মাধ্যমিকে মোট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ২০ হাজার ৬৬০টি, এই স্তরে মোট শিক্ষার্থী ১ কোটি ৩৪ লাখের মতো। মাধ্যমিক ও কলেজ পর্যায়ের শিক্ষা দেখভাল করে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)। সংস্থাটির মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম ফারুক গতকাল শুক্রবার প্রথম আলোকে বলেন, এখনো স্কুল-কলেজ খোলার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। এ অবস্থায় জুনে অনুষ্ঠেয় অর্ধবার্ষিকী পরীক্ষা স্থগিত করা ছাড়া উপায় নেই।

দেশে সরকারি, কিন্ডারগার্টেন, এনজিও পরিচালিত স্কুলসহ সব মিলিয়ে প্রাথমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আছে ১ লাখ ২৯ হাজার ২৫৮টি। এগুলোতে মোট শিক্ষার্থী পৌনে ২ কোটি। শিক্ষাপঞ্জি অনুযায়ী প্রাথমিকে গত ১৫ এপ্রিল থেকে ২৩ এপ্রিলের মধ্যে প্রথম সাময়িক পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। সেটি তো হয়ইনি বরং আগামীতে দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষা হওয়ারও সম্ভাবনা নেই।

স্কুলের অর্ধবার্ষিকী পরীক্ষা অনিশ্চিত
পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে এইচএসসি পরীক্ষাও শুরু হবে না
এসএসসির ফল রোববার

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. ফসি উল্লাহ গতকাল প্রথম আলোকে বলেন, বিদ্যালয় না খুললে পরীক্ষা হবে কীভাবে? তবে বিদ্যমান পরিস্থিতিতে টিভিতে ক্লাস হচ্ছে। অনেক জায়গায় শিক্ষকেরা নিজ উদ্যোগে শিক্ষার্থীদের বাড়িতে প্রশ্ন পাঠিয়ে মূল্যায়ন করছেন। তবে এটা বাধ্যতামূলক করা হবে না। কারণ, এভাবে জাতীয় মূল্যায়ন সম্ভব নয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অধিদপ্তরের একজন কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, করোনাভাইরাসের বর্তমান যে পরিস্থিতি, তাতে জুনে কোনোভাবেই বিদ্যালয় খোলার সুযোগ নেই।

অবশ্য এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও গত এপ্রিলের শেষ নাগাদ এক অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, বর্তমান করোনা পরিস্থিতি অব্যাহত থাকলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বন্ধ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত থাকবে।

এইচএসসি পরীক্ষা এখনই নয়

গত ১ এপ্রিল এইচএসসি পরীক্ষা শুরুর কথা ছিল। গত মার্চেই এই পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। ফলে ১৩ লাখের বেশি পরীক্ষার্থী অনিশ্চয়তায় পড়েছে। পরীক্ষা আবার কবে শুরু হতে পারে জানতে চাইলে ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক গতকাল প্রথম আলোকে বলেন, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই এই পরীক্ষার কার্যক্রম হাতে নেওয়া হবে।

এসএসসির ফল রোববার

করোনাভাইরাসের কারণে অনিশ্চয়তার মুখে পড়া এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল কাল রোববার প্রকাশ করা হবে। ওয়েবসাইটসহ প্রযুক্তির অন্যান্য পদ্ধতির পাশাপাশি আরও সহজে যাতে শিক্ষার্থীরা ফল পায়, সেই ব্যবস্থা করেছে শিক্ষা বোর্ডগুলো। এই ব্যবস্থায় যেসব পরীক্ষার্থী নির্ধারিত পদ্ধতিতে প্রাক্‌-নিবন্ধন করেছে, তাদের মোবাইল ফোনে ফল প্রকাশের দিন স্বয়ংক্রিয়ভাবে ফল জানিয়ে দেওয়া হবে।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের জ্যেষ্ঠ সিস্টেম অ্যানালিস্ট মঞ্জুরুল কবীর প্রথম আলোকে বলেন, গতকাল বেলা ১টা ৫৮ মিনিট পর্যন্ত মোট ১১ লাখ ৩৩ হাজার ৩৩১ জন পরীক্ষার্থী প্রাক্‌-নিবন্ধন করেছে।

গত ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় এবার মোট পরীক্ষার্থী ছিল প্রায় সাড়ে ২০ লাখ।

 

যা খেলে রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়ে

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের এই সময়ে নানা ধরনের ভিটামিন-মিনারেল বড়ি খাওয়ার হিড়িক পড়েছে। কিন্তু গবেষকেরা বলছেন, এমন কোনো জাদুকরি খাবার বা বড়ি নেই, যা খেলে করোনার সংক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। সামাজিক দূরত্ব, বারবার হাত ধোয়া আর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাই এ ক্ষেত্রে মূলমন্ত্র। তবে এটাও ঠিক যে, সঠিক সুষম ও পুষ্টিকর খাবার যেকোনো রোগ, বিশেষ করে সংক্রামক রোগের সঙ্গে লড়াই করার শক্তি জোগায়।

• বিজ্ঞানীরা আগে থেকেই নানা ধরনের ফ্লু আর নিউমোনিয়ার সঙ্গে লড়ার জন্য অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে আসছেন। ভিটামিন সি, ডি, ই এবং খনিজের মধ্যে জিংক, সেলেনিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম শরীরের রোগ প্রতিরোধব্যবস্থার বিভিন্ন পর্যায়ে কাজে লাগে। তার মানে এই নয় যে এগুলোর সাপ্লিমেন্ট খেলে আপনি নিরাপদ থাকবেন।

• যুক্তরাষ্ট্রের ওষুধ প্রশাসন বলছে, রোগ প্রতিরোধ করতে বাজারের সাপ্লিমেন্ট কাজে আসবে—এমন দাবির কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। ভিটামিন সি নিয়ে ইতিমধ্যে চীনে দুটি গবেষণা হয়েছে আর জিংক নিয়ে গবেষণা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা ইনস্টিটিউটে (এনআইএইচ)। এসব গবেষণায় কিছুটা উপকার দেখা গেলেও এগুলো রোগীর শারীরিক অবস্থার উন্নতিতে কতটা কার্যকর, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। 

• তবে গবেষকেরা এ-ও বলছেন, সাপ্লিমেন্ট বা বড়ির বদলে এই মুহূর্তে বাড়িতে স্বাস্থ্যকর ভিটামিন, খনিজসমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার দিকে মনোযোগ দেওয়া উচিত সবার। তাই বলে কোনো কিছুই অতিরিক্ত খাওয়া চলবে না।  

• বয়োবৃদ্ধ, রোগী, হজমের গোলমাল রয়েছে কিংবা কিডনি জটিলতা আছে, এমন ব্যক্তিরা ভিটামিন বা মিনারেল সাপ্লিমেন্ট খেতে পারেন। যারা এ মুহূর্তে ঘরবন্দী এবং ঘরে রোদ পান না, তাঁরা ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্ট খেতে পারেন।

এবার জেনে নেওয়া যাক, কোন খাবারে কোন ভিটামিন ও খনিজ উপাদান পাওয়া যায়।

ভিটামিন এ এবং বিটা ক্যারোটিন: মিষ্টিকুমড়া, স্কোয়াশ, গাজর, মিষ্টি আলু, পাতাওলা শাক এবং আম।

ভিটামিন সি: সাইট্রাস ফল (লেবু বা টকজাতীয় ফল), স্ট্রবেরি, ক্যাপসিকাম, কাঁচা মরিচ, টমেটো।

ভিটামিন ই: উদ্ভিজ্জ তেল, বাদাম, শস্যজাতীয় খাবার।

সেলেনিয়াম: ডিম, মাশরুম, পালংশাক, মুরগির মাংস।

ভিটামিন ডি: কলিজা, ডিমের কুসুম, দুধ ও দুগ্ধজাতীয় খাবার, যেমন দই। এ ছাড়া সামুদ্রিক মাছ, যেমন স্যামন, টুনা, সার্ডিন মাছেও ভিটামিন ডি রয়েছে। সূর্যরশ্মিতে শরীরে প্রাকৃতিকভাবে ভিটামিন ডি তৈরি হয়। তাই ঘরবন্দী থাকলেও বারান্দায় বা উঠোনে গিয়ে ত্বকে রোদ লাগানোর চেষ্টা করুন।

লেখক: পুষ্টিবিদ পিপলস হাসপাতাল, খিলগাঁও, ঢাকা

Corona News BD

We warmly wishing welcome every visitor to our site to stay with us for the news update.

Job circular, job exam date, admit card download link and important news, we remain it’s very essential for you so if you remain this site help you broadly can visit here for the news update. For more information about any job circular in Bangladesh, you can contact us on the Facebook group or Twitter. Our admin always stays with you to solve this problem.

Job-related content writing and information is more important for applicants cause it helps to understand the job circular easily so we can say this way we are the best in Bangladesh.

Candidates can easily find out their essential information in the upper search icon on our site. Result pedia bd always fast for your consideration.

Never try to copy us cause our all content has copyrights so anybody copies our text and uses it his own site we warning them another way we case against them so be careful. 

At present we see some site copy our text and use it in his own site we already warning them if they don’t obey our warning we take a step against them

Covid 19 all update news BD

If any job circular takes the apply by the online system we give the link here in up of the post so easily get the link here. You can go to the site then fill up the site with your essential education and Bio-data related information. 

Here have a condition when you set your picture and signature here you just need to size your image 300*300 and signature size 300*80 to online apply. 

When applying to any institution you need to know about the institution. That causes Bangladeshi many Multinational Company Cheats with our job applicant. So the institution’s name and their condition help you to know about them and their job. 

Or you can search the institution name and head office in google to collect more information about that institution then can apply it to any other Multinational Company Circular.

চাকরির পরীক্ষার সময়সূচী, এডমিট কার্ড প্রকাশ সহ সকল চাকরির নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ও পরীক্ষার সময়সূচীর নোটিফিকেশন পেতে বেল বাটনটি Allow and Subscribe  করুন 

Allow the Notification Button to get Job circular, Exam result and Question solution related news update